৯৯ ডিজাইন এ কনটেষ্ট বিজয়ী হবার ১০টি প্রয়োজনীয় কৌশল

99 design contest winning secret tips and tricks

৯৯ ডিজাইন শুধুমাত্র ফ্রিল্যান্সার ডিজাইনারদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি সর্বাধিক জনপ্রিয় প্রতিযোগিতা মূলক অনলাইন মার্কেটপ্লেস। এখানে শুধু গ্রাফিক ডিজাইন সম্পর্কিত বিষয়ে প্রতিযোগিতা হয় আর এর মধ্যে লোগো ডিজাইন, ওয়েবসাইট ডিজাইন, বাটন ও আইকন ডিজাইন, টি-শার্ট ডিজাইন, ব্যানার ডিজাইন ইত্যাদি জনপ্রিয় বিষয়। এছাড়া গ্রাফিক ডিজাইন এর প্রায় সব কিছুর উপর প্রতিযোগিতা হয়ে থাকে এখানে।

এখানে প্রত্যেকটি ডিজাইন সম্পন্ন করার জন্য ক্লায়েন্ট বা কন্টেস্ট হোল্ডার একটি উন্মুক্ত প্রতিযোগিতার আয়োজন করেন। ক্লায়েন্টে প্রতিযোগিতার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করেন। নির্দেশনা অনুযায়ী ডিজাইনাররা ডিজাইন তৈরি করে। এই প্রতিযোগিতায় যে কেউ অংশগ্রহণ করতে পারে । ক্লায়েন্ট প্রতিযোগিতার জন্য একটি নির্ধারিত বাজেট নির্ধারণ করেন। সবশেষে ক্লায়েন্ট একজন ডিজাইনারকে বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করে এবং পুরষ্কার হিসেবে ডিজাইনারকে পূর্ব নির্ধারিত অর্থ প্রদান করেন।
৯৯ ডিজাইনে প্রত্যেকটি প্রতিযোগিতাকে কনটেস্ট বলা হয়। প্রতিযোগিতার আয়োজনকারী কনটেস্ট হোল্ডার বা আয়োজক এবং অংশগ্রহণকারী ফ্রিল্যান্সারদের কে বলা হয় ডিজাইনার।

এখন কথা হলো এখানে জয় লাভ করা কি খুব সহজ? উত্তর হচ্ছে অনেক কঠিন। কারন এখানে ডিজাইন এ জয়ী হতে সারা বিশ্বের বড় বড় ডিজাইনারদের সাথে প্রতিযোগিতা করতে হবে। কিন্তু জয়ী হবে একটা ডিজাইন তাই এখানে অনেক কিছু ব্যাপার আছে। শুধু ভালো ডিজাইন করলে ই এই ধরন এর প্রতিযোগিতায় জয়লাভ করা অনেক কঠিন। প্রতিটা মার্কেটপ্লেস এর একটা কমিউনিটি থাকে সে ভাবে কাজ করতে হয়। আপনি হয়তো অনেক ভালো ডিজাইন করেন কিন্তু সফল হচ্ছেন না তার মানে হচ্ছে আপনি কিছু নিয়ম জানেন না।

৯৯ ডিজাইন এ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হওয়ার কিছু টিপস (99 design contest winning secret tips and tricks)

নতুন কন্টেস্ট এ অংশগ্রহন করুন
কনটেষ্টে প্রাথমিক অবস্থায় অংশগ্রহন করুন অর্থাৎ কন্টেস্ট মাত্র শুরু হয়েছে, খুব বেশি ডিজাইন জমা পরে নাই এরকম কন্টেস্ট এ অংশগ্রহন করুন। এটা অনেকটা প্রথম প্রেম এর মত। কন্টেস্ট হোল্ডাররা প্রথম দিকে সাবমিট করা ডিজাইন এর দিকে বেশি আগ্রহি হয়। অন্যরা হয়ত আপনাকে ফলো করতে পারে, তাই যতটা সম্ভব ইউনিক রাখুন ডিজাইন। ডিজাইনে সতন্ত্র বা নিজস্বতা বলতে কিছু ব্যাপার ফুটিয়ে তুলুন যা অন্যরা সহজে করতে না পারে।

কন্টেস্ট হোল্ডার এর প্রোফাইল ডিটেইলস দেখে নিন
আপনি কি জানেন এখানেও চালাকি আছে। অনেক ক্লায়েন্ট আছেন যাদের পেমেন্ট ভেরিফাইড না। আবার অনেকে কনটেষ্ট প্রাইজ না দিয়েই কনটেষ্ট বন্ধ করে দেয়। তাই ক্লায়েন্ট এর আগে যেসব কনটেষ্ট দিয়ে ছিল তার ধরন কেমন ছিল, এই বিষয়গুলো অবশ্য ভেবে দেখতে হবে। আগের কনটেষ্ট থেকে ক্লায়েন্ট এর পছন্দ সম্পর্কে ধারণা পেতে পারেন। তাই ক্লায়েন্ট এর প্রোফাইল ভালভাবে দেখে নিন। অনেকে কন্টেস্ট হোল্ডার আছে যারা আপনার মতই ডিজাইনার। তাঁরা গ্যারান্টি ছাড়া প্রতিযোগিতা সাবমিট করে। সেখানে না বুঝে অনেকে ডিজাইন জমা দেয় আর সেই ডিজাইন থেকে আইডিয়া নিয়ে বা ডিজাইনগুলি নিয়ে কন্টেস্ট বন্ধ করে দেয়। তাই কে কন্টেস্ট চালু করেছে দেখে নেয়া ভাল। আগে সে কন্টেস্ট করেছে কিনা, টাকা দিয়েছে কিনা এগুলি আপনি তাদের প্রোফাইল এ দেখতে পারবেন আর একটা সুবিধা হলো আপনি হয়ত বুঝতে পারবেন সে কি ধরন এর ডিজাইন পছন্দ করতে পারে। সে কোন দেশ এর এটা দেখে নিলেন তারপর সেটা চিন্তা করে ডিজাইন করলেন। একজন বাংলাদেশি যেরকম ডিজাইন পছন্দ করবে একজন আমেরিকান সেরকম ডিজাইন পছন্দ না ই করতে পারেন।

সব সময় ব্রিফ ফলো করুন
প্রথম ধাপে প্রতিযোগিতার আয়োজক বা কন্টেস্ট হোল্ডার তার চাহিদা অনুযায়ী ডিজাইনের একটি নির্দেশনা তৈরি করে যাকে বলা হয় ডিজাইন ব্রিফ (Design Brief)। ডিজাইনাররা এই ব্রিফের উপর ভিত্তি করে তাদের ডিজাইন তৈরি করে থাকে।
এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ, ৯৯ ডিজাইন এ অন্য ডিজাইন এ যদি বায়ার কমেন্ট করে তাহলে সেগুলা পড়েন, তাহলে বুঝতে পারবেন বায়ার কি চায়, কি ধরন এর ডিজাইন পছন্দ করছে। ব্রিফ পরার পড় এটা দেখেন তাহলে ভালো হবে।
৯৯ ডিজাইন এ ব্রিফ হচ্ছে প্রতিযোগিতার শুরু এবং শেষ, মোট কথা হলো সব কিছুই। ব্রিফ আপনাকে ভালো করে পড়তেই হবে না হলে আপনি যে ডিজাইন করবেন সেটা যতই ভালো হোক, বায়ার এর কাছে হয়তো ভালো লাগবে না।

বায়ারের না বলা কথা জানুন
আপনাকে অনেক সময় বায়ারের না বলা বিষয়গুলোও বুঝতে হবে। বায়ার সব কিছু ঠিক ঠাক মতো লিখে দেবে এরকম ভাবার কারন নাই। বেশির ভাগ বায়ার ই কিন্তু আপনাকে ব্রিফ এ সব কিছু বলে দিবে না। সে একটা সামারি লিখে দিবে সেখান থেকে আপনাকে বের করতে হবে বায়ার এর কি পছন্দ কি অপছন্দ, প্রতিযোগিতায় বায়ার এর কি পছন্দ কি অপছন্দ এটা যদি বের করতে পারেন তাহলে আপনার জয়ের সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যাবে। এরপর বায়ার যেভাবে বলছে সেটা বুঝতে সমস্যা হলে গুগল এ চলে যান, সেখান থেকে ভালো করে বুঝে নেন।

নিজের ডিজাইনকে অন্যদের থেকে আলাদা করার চেষ্টা করেন
৯৯ ডিজাইন সহ প্রায় প্রতিটা প্রতিযোগিতার একটা সমস্যা হচ্ছে যে ব্রিফ এ যদি কোন আইডিয়া দেয়া থাকে আর সেই প্রতিযোগিতা যদি ব্লাইন্ড না হয় তাহলে বেশির ভাগ ডিজাইন একই রকম হবার সম্ভাবনা থাকে, আর সেটা হলে বায়ার ও মাঝে মাঝে দ্বিধায় পড়ে যায় যে সে কারটা নিবে, তখন ব্যাপারটা অনেকটা লটারির মত হয়ে যায় আপনার ভাগ্য ভালো থাকলে আপনি জিতবেন। কিন্তু আপনি যদি একটু চেষ্টা করেন তাহলে আপনি ভালো করতে পারবেন। কি করবেন? একটু আলাদা কিছু করার চেষ্টা করবেন। এরকম ভাবে কাজ করতে হলে কম পক্ষে ১০-১৫টা ডিজাইন সাবমিট হবার পর আপনি আপনার ডিজাইন সাবমিট করেন।
ক্লায়েন্ট এর ব্রিফ বা বর্ণনা হুবুহু করতে হবে ব্যাপারটা এমন নয়। বরং এমন কিছু করুন যেন ক্লায়েন্ট যা ব্রিফ দিয়েছেন তা ঠিক থাকে এবং আরোও বৈচিত্রতা থাকে। কারণ সবাই ক্লায়েন্টকে হুবু হয়ত ফলো করবে। যেমন ক্লায়েণ্ট আপনাকে হরিণ নিয়ে লগো ডিজাইন করতে বলেছে। আপনি লগোতে হরিনের শিং নিয়ে কাজ করতে পারেন। অর্থাৎ এমন কিছু করুন যেন সবার চাইতে আলাদা হয় কিন্তু অপ্রাসঙ্গিক না হয়। খেয়াল করলে দেখবেন জয়ী ডিজাইন সব সময় হুবুহু ব্রিফ মেনে করা হয়েছে এরকম না। যেমন কন্টেস্ট হোল্ডার বাঘ নিয়ে একটা লোগো করতে দিয়েছে আপনি একটা ডিজাইন করেন বাঘ নিয়ে আর একটা ডিজাইন এ আপনার মত করে কিছু তৈরি করুন সেখানে পায়ের ছাপ থাকতে পারে বাঘের। চেষ্টা করুন এমন ডিজাইন এর যা অন্যরা চিন্তা করে নাই। অন্যদের কাজ থেকে আলাদা।
এখানে একটা জিনিস মনে রাখবেন আপনি যদি কোন নতুন আইডিয়া নিয়ে আসেন, তারপর যদি আপনার আইডিয়ার মত করে কেউ ডিজাইন সাবমিট করে সে সব ডিজাইন কিন্তু বায়ার এর কাছে গুরুত্ব পাবে না। তাই এটা চিন্তা করার দরকার নাই যে আইডিয়া কপি হয়ে গেলে তো সমস্যা।
যেমন, সবাই যদি টেক্সট বেসড লোগো দেয় আপনি একটু অন্যরকম করার চেষ্টা করেন, সবাই যদি এক ধরন এর কালার দেয় আপনি চেষ্টা করেন সেটা না দিয়ে একটু অন্যরকম করে দিতে, মোট কথা সবার থেকে একটু অন্যরকম করে করতে চাইলে আপনাকে ব্রিফ থেকে একটু সরে আসতে হবে, ব্রিফ এর মুল ব্যাপারগুলা রেখে নিজের মত কিছু। কমপক্ষে দুইটা ডিজাইন সাবমিট করতে পারেন। একটা অন্যরা যেভাবে করেছে একদম সেরকম অর্থাৎ একদম ব্রিফ এর মধ্যে থেকে আর একটা করেন একটু অন্যরকম ভাবে, একটু ব্রিফ থেকে সরে এসে।

ডিজাইন মকআপ এ দিন
ডিজাইন করার পর আপলোড করার সময় সব সময় মোকআপ এ দেয়ার চেস্টা করবেন কারন মোকআপ ডিজাইনে যোগ করে নতুনমাত্রা। এর সাথে অরিজিনাল ফাইল এর প্রিভিও টাও এড করে দিন। ডিজাইনটি ভাল করে দেখুন, ১০০% ভিউ করে দেখুন, আবার ফুল স্ক্রিন মুড এ দেখুন, ডিজাইন এর প্রতিটা জিনিস ভাল মতো লক্ষ্য করুন কোন ভুল হল কিনা, বানানে কোন ভুল হল কিনা, শেপ এ কোন প্রবলেম হল কিনা যেটা দেখলে আপনার বায়ার আপনার ডিজাইন বাতিল করে দিতে পারে।

ডিজাইন এর বিস্তারিত তুলে ধরুন
৯৯ ডিজাইন এ ডিজাইন সাবমিট করে অবশ্যই আপনি কি চিন্তা করে ডিজাইনটা করেছেন, ডিজাইন এর মধ্যে কি গল্প তৈরি করেছেন, ডিজাইন এর যুক্তিগুলা কি কি ছিলো, ব্রিফ এর বাইরে গিয়ে যদি ডিজাইন করেন তাহলে কেনো সেটা করেছেন, সেটা বিস্তারিত ভাবে লিখে দেন। কারন সবাই কিন্তু শুধু ডিজাইন দেখে না ও বুঝতে পারে। আর আপনার ডিজাইন এ আপনি যা করেছেন সেটা সে নিলে তার কি কি লাভ হতে পারে সেটাও লিখে দিতে পারেন। আপনি ডিজাইন পরিবর্তন করতে পারবেন এটা বায়ারকে লিখে দিবেন। আবার আপনি ডিজাইন করতে এমন একটা ফন্ট ব্যবহার করলেন যেটা অনলাইন থেকে ফ্রী ডাউনলোড করা যায় না, সেটা কিনে নিতে হবে, তাই আপনাকে বলে দিতে হবে ফন্টটা কিনতে হলে কতো খরচ পড়বে, কোন ওয়েবসাইট থেকে কেনা যাবে তার লিঙ্কও দিয়ে দেয়া উচিত এমন ও যদি হয় আপনি ফ্রী ফন্ট ডাউনলোড করেছেন তাহলে সেই ফ্রী ফন্ট এর ওয়েবসাইট এর লিঙ্ক দিয়ে দিবেন। আবার আপনার ভাল মানের বড় সাইজ এর ছবি দরকার ফ্রী পাচ্ছেন না তাহলে বলে দিবেন, কোথা থেকে ছবি কিনলে সে ভাল মতো কিনতে পারবে, আবার এরকম মনে করার দরকার নেই যে সে কিছুই জানে না, আবার অনেকে আছে যারা হয়ত জানে না, তাই এগুলি লিখে দিলে ভাল হয়।

সবসময় ফিডব্যাক চাইবেন
কন্টেস্ট হোল্ডার এর কাছে ফিডব্যাক চাইবেন। তাতে আপনি বুঝতে পারবেন আপনার ডিজাইন তার কাছে কেমন লেগেছে। কোন বিষয়গুলো তার কাছে ভাল লাগে নাই সে জন্য হয়ত আপনি জয়ী হতে পারেন নাই তাহলে সেগুলি বিবেচনা করে আপনি পরের কন্টেস্ট এ অংশগ্রহন করতে পারবেন এবং আগের থেকে ভাল করতে পারবেন।

দ্রুত রিভিশন শেষ করুন
আপনার ডিজাইন যদি কন্টেস্ট হোল্ডার এর পছন্দ হয় কিন্তু সে যদি মনে করে কিছু জায়গা ঠিক করা প্রয়োজন তাহলে সে আপনাকে আপনার ডিজাইন রিভিশনের জন্য বলতে পারে। সে ক্ষেত্রে চেস্টা করবেন যত তাড়াতাড়ি ঠিক করে আবার জমা দেয়া যায় কারন রিভিশন হয়ত কন্টেস্ট হোল্ডার শুধু আপনাকে দেয় নাই আরও কিছু প্রতিযোগীকে দিয়েছে তারাও ঠিক করে জমা দিবে। তারাও চাইবে অনেক তাড়াতাড়ি জমা দিতে। মনে রাখবেন এটা কন্টেস্ট, কেউ কিন্তু আপনাকে তার নিজের পথ ছেরে দিবে না। তাই এ ক্ষেত্রে প্রয়োজন যত দ্রুত রিভিশন শেষ করে ফাইল আপলোড করা। হয়ত আপনার ডিজাইনটি রিভিশনের প্রথমে ক্লায়েন্ট এর চোখে পড়লে সেটিই চূড়ান্ত বলে গন্য হতে পারে।

যদি কন্টেস্ট এ হেরে যান
আপনি যদি কন্টেস্ট হেরে যান তাহলে আপনার ডিজাইন প্রতিযোগিতা থেকে তুলে নিন এবং সেই ডিজাইন আপনি অন্য মার্কেটপ্লেসে বিক্রয় বা আপনার প্রোফাইলে ডিজাইনগুলি রেখে অন্য মার্কেটপ্লেস এর জন্য কাজ করতে পারবেন যেখানে পোর্টফলিও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এরপর আর একটা কন্টেস্ট এর দিকে মনোযোগী হন। মনে রাখবেন যেটাতে আপনি জিতলেন না সেখান থেকে আপনার অনেক অভিজ্ঞতা হলো, সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সামনে এগিয়ে যান। মনোবল আর দৃঢ়তার প্রচেষ্টা চালিয়ে যান, হয়ত আপনিই হবেন বিজয়ী।

Recommended For You

About the Author: Techohelp

"Techohelp" একটি টিউটরিয়াল ভিত্তিক বাংলায় ব্লগ। যারা কম্পিউটার, ইন্টারনেট, ওয়েবসাইট এবং অনলাইন প্রযুক্তি সম্পর্কে জানতে চান তাদের জন্য Techohelp একটি দারুন প্লাটফরম। অনলাইনে ইনকাম বা ফ্রিলাঞ্চিং বিষয়ে জানতে ও শিখতে আগ্রহিদের কথা মাথায় রেখে, ওয়েবসাইটের সকল কন্টেন্ট এমন ভাবে লেখা হয় যেন আপনি নিজেই ঘরে বসে নিজের মতন সহজে শিখতে পারেন। ফেসবুকে আমাদের সাথে যুক্ত থাকুনঃ https://www.facebook.com/Techohelp/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *