যেকোন সফটওয়্যারের ট্রায়াল প্রিরিয়ড বাড়ান

সফটওয়্যারের ট্রায়াল প্রিরিয়ড বাড়ান

অনলাইনে অনেক সফটওয়্যার পাওয়া যায় যেগুলো কিনে ব্যাবহার করার আগে ট্রায়াল করার সুযোগ দেয়। কিন্তু আমরা বিভিন্ন কারনে ট্রায়াল প্রিরিয়ড বা মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও কিনি না। আবার অনেক সফটওয়্যার আছে যেগুলো বেশ দামি হওয়ার কারনে কিনতে পারিনা। সফটওয়্যারের লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে বিরক্তিকর নোটিফিকেশন আসতে থাকে।

এ্যাডোব ফটোশপ, এ্যাডোব ইলাস্ট্রেটর, আইডিএম ডাউনলোডার প্রভৃতি সফটওয়্যারগুলোর ক্র্যাক ভার্শন বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করলেও অনেক সময় সেগুলো ফুল ভার্শন করতে সমস্যায় পরতে হয়। কারন ক্র্যাকড লাইসেন্সগুলো বেশির ভাগই ফেইক বা আইটডেটেড।

কিন্তু আমার একটি অনুরোধ সাধ্য-সামর্থ থাকলে আপনারা অবশ্যই সফটওয়্যার কিনে ব্যাবহার করবেন। কারন সফটওয়্যার বানাতে তাদের যে মেধা ও পরিশ্রম হয়েছে তার সঠিক প্রাপ্য তাদের দেওয়া আমাদের নৈতিক দায়িত্ব।

বিভিন্ন সফটওয়্যার এর মাধ্যমেও ট্রায়াল প্রিরিয়ডের মেয়াদ বাড়ানো কাজটি করা যায়। কিন্তু আমি এই টিউটোরিয়ালটিতে উইন্ডোজ রেজিস্ট্রি এডিট করে খুব সহযেই যেকোন সফটওয়্যার এর মেয়াদ বাড়াবেন সেই পদ্ধতি দেখাবো। এর জন্য আপনার প্রয়োজন হবে কম্পিউটারের সাধারন জ্ঞান।

উইন্ডোজ রেজিস্ট্রি এডিটের মাধ্যমে সফটওয়ারের লাইসেন্স এর মেয়াদ বাড়ানোর পদ্ধতি

এই পদ্ধতিতে কোন সফটওয়্যার ইন্সটল করতে হবেনা। শুধুমাত্র নিচের দেখানো ধাপগুঅে অনুসরন করুন।

১। প্রথমত সফটওয়্যারটি যদি উতি মধ্যে আপনার কম্পিউটারে ইনন্সটল করা থাকে তাহলে ওটাকে আন-ইন্সটল করুন।

২। তারপর কি-বোর্ড থেকে “Windows + R” key চেপে “RUN” এ যান।

৩। এবার সার্চ বক্সে টাইপ করুন “regedit” এবং Enter দিন। তাহলেই উইন্ডোজ রেজিস্ট্রি  এডিটর ওপেন হবে।

৪। উইন্ডোজ রেজিস্ট্রি  এডিটরের সার্চ বারে HKEY_LOCAL_MACHINE Software লিখে দেখুন আপনি যে সফটওয়ারের ট্রায়াল পিরিয়ড বাড়াতে চাচ্ছেন সেটির নাম দেখাবে। ওটাকে delete করুন।

৫। এরপর HKEY_CURRENT_USER Software লিখে সার্চ করে ওই সফটওয়ারটির নাম বার করে একইভাবে delete করুন। এবং উইন্ডোটি ক্লোজ করে দিন।

৬। আবার RUN গিয়ে টাইপ করুন %temp% এবং Enter দিন। এখানের সব ট্যাম্পোরারি ফাইল সিলেক্ট করে ডিলিট করুন।

৭। এবার C: \ Users \ Your Username \ Appdata তে যান। এখানে Locallow, Local এবং Roaming এই  তিনটি ফোল্ডার দেখতে পারবেন। সবকটি ফোল্ডারে খুঁজে দেখুন সফটওয়ারের নামে কিছু আছে কিনা, থাকলে সব ডিলিট করুন।

৮। উপরের সব ধাপগুলো ঠিকঠাকভাবে সম্পন্ন করে কম্পিউটার রিস্টার্ট দিন।

৯। কম্পিউটার চালিয়ে আবার একই সফটওয়ার ইন্সটল করে দেখুন আপনার লাইসেন্স পিরিয়ড বা মেয়াদ বেড়ে গেছে।

আশা করি, এই পদ্ধতিতে যেকোন সফটওয়্যারের ট্রায়াল প্রিরিয়ড বাড়াতে পারবেন। আর এই পদ্ধতি যদি কাজ না করে বা সমস্যায় পরেন কমেন্টে জানান, সাধ্যমতো চেষ্টা করবো সাহায্য করতে।

Recommended For You

About the Author: Techohelp

"Techohelp" একটি টিউটরিয়াল ভিত্তিক বাংলায় ব্লগ। যারা কম্পিউটার, ইন্টারনেট, ওয়েবসাইট এবং অনলাইন প্রযুক্তি সম্পর্কে জানতে চান তাদের জন্য Techohelp একটি দারুন প্লাটফরম। অনলাইনে ইনকাম বা ফ্রিলাঞ্চিং বিষয়ে জানতে ও শিখতে আগ্রহিদের কথা মাথায় রেখে, ওয়েবসাইটের সকল কন্টেন্ট এমন ভাবে লেখা হয় যেন আপনি নিজেই ঘরে বসে নিজের মতন সহজে শিখতে পারেন। ফেসবুকে আমাদের সাথে যুক্ত থাকুনঃ https://www.facebook.com/Techohelp/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *